Assignment

সপ্তম শ্রেণি বিজ্ঞান অ্যাসাইনমেন্ট সমাধান

ক্লাস ৭, সপ্তম শ্রেণির সাধারণ বিজ্ঞান বিষয়ের এ্যাসাইনমেন্ট প্রশ্নের উত্তর

অ্যাসাইনমেন্ট অ্যাসাইনমেন্ট অ্যাসাইনমেন্ট
শিক্ষার্থীদের জীবনে এখন এসাইনমেন্ট এক চরম ভয়ের জিনিসের নাম। কিন্তু খুব সহজে বিষয়ভিত্তিক অ্যাসাইনমেন্টগুলো যে করা যায় তা শিক্ষার্থীরা অনেক সময় তা জানেনা।

বর্তমান সময়ে করোনাভাইরাস এর প্রভাব এর কারণে বিভিন্ন শিক্ষাপ্রতিষ্ঠান বন্ধ। শিক্ষার্থীদের সচলতা চালু রাখার জন্য প্রত্যেকটি বিদ্যালয় থেকে এখন অ্যাসাইনমেন্ট এর জন্য তাগাদা দেয়া হচ্ছে।

সপ্তাহে সপ্তাহে অ্যাসাইনমেন্ট গুলো প্রদানের মাধ্যমে শিক্ষার্থীদের লেখাপড়া চালিয়ে নেয় হচ্ছে। কিন্তু শিক্ষার্থীদের জ্ঞান সল্পতার কারণে এবং অনভিজ্ঞতার কারণে তারা অ্যাসাইনমেন্ট কে অনেক ভয় পাচ্ছে।

কিন্তু অ্যাসাইনমেন্ট কোন ভয়ের বিষয় নয়। অধ্যায় ভিত্তিক সংক্ষিপ্ত আলোচনার মাধ্যমে এসাইনমেন্ট এ ভালো নাম্বার পাওয়া সম্ভব। তাই আপনি আপনার পাঠ্যবই খুলে খুব সহজেই অ্যাসাইনমেন্ট গুলোকে সুন্দর এবং সফলভাবে শিক্ষকের কাছে উপস্থাপন করতে পারবেন এবং পেয়ে যাবেন আপনি আপনার কাঙ্খিত নাম্বার।

তার জন্য আমাদের ওয়েবসাইটের বিভিন্ন লেখা থেকে সাহায্য নিতে পারেন। শিক্ষার্থীদের বিভিন্ন বিষয় থেকে মুক্তির জন্য আমরা বিষয়ভিত্তিক অ্যাসাইনমেন্ট গুলো নিয়মিত লিখে যাচ্ছি।

আপনারা আপনাদের প্রয়োজনমত বিষয়ভিত্তিক নিতে পারবেন এবং সুন্দর এবং সাবলীল ভাবে সৃজনশীলতার পরিচয় দিয়ে শিক্ষকের কাছে উপস্থাপন করতে পারবেন। নিচে সপ্তম শ্রেণীর বিজ্ঞান এর এসাইনমেন্ট তুলে ধরা হলো।

আমরা আমাদের চারপাশে বিভিন্ন ধরনের জীব দেখতে পাই। আমাদের চোখে দৃশ্যমান বস্তু ছাড়াও অনেক জীব আছে যেগুলো আমরা খালি চোখে দেখতে পায় না। এ জীন সৃষ্টির আগে থেকে রয়েছে বলে এদেরকে বলা হয় আদিজীব। এদের আসল নাম হচ্ছে অণুজীব।

অণুজীবের জগতকে তিনটি ভাগে ভাগ করা হয়েছে। এগুলো হলো এরিওটা,প্রোক্যারিওটা এবং ইউক্যারিওটা। অনুজীবের মধ্যে ভাইরাস ও ব্যাকটেরিয়া অন্তর্ভুক্ত। ভাইরাস ও ব্যাকটেরিয়া আমাদের চারপাশে সব সময় ঘুরে বেড়াচ্ছে।

কিন্তু আমরা খালি চোখে দেখতে পাই না। ভাইরাস ও ব্যাকটেরিয়া যেমন আমাদের অপকার করে তেমনি আমাদের অনেক উপকার করে। তবে ব্যাকটেরিয়া অপকারের চাইতে উপকার বেশি করে থাকে।

ছত্রাক, শৈবাল, অ্যামিবা ইত্যাদি অনুজীব আমাদের চারপাশে অনুঘটক হিসেবে বসবাস করে এবং আমাদের অনেক উপকার করে থাকে। এসব অণুজীবগুলো বাতাসের মাধ্যমে একই স্থান থেকে আরেক স্থানে চলাফেরা করে।

এসব অণুজীবগুলো অনেক সময় আমাদের শরীরে প্রবেশ করে এবং আমাদের শরীরের অনেক ক্ষতি করে থাকে। যা অনেক সময় প্রাণহানির ঘটনা ঘটে থাকে। অনেক সময় এসব অণুজীবগুলো ছোঁয়াচে রোগের মতো এক শরীর থেকে অনেক শরীরে ঘুরে বেড়ায় ফলে এসব রোগ প্রতিরোধের জন্য আমাদেরকে সচেতন থাকতে হবে এবং বাইরে বেরোনোর সময় ধুলোবালি থেকে আমাদেরকে রক্ষা পাওয়ার জন্য মাস্ক ব্যবহার করতে হবে।

এসব অণুজীবগুলো আমাদের শরীরে ঢুকলে আমাদের কি ক্ষতি হতে পারে তা আমরা নিজেদের পরিবারকে জানাবো এবং আমাদের প্রতিবেশীদেরকে জানাবো এবং এগুলো থেকে কিভাবে প্রতিরোধ গড়ে তোলা যায় তা সম্পর্কে সবাইকে অবহিত করব।

এভাবে আমরা অণুজীবগুলো থেকে উপকার লাভের পাশাপাশি দূরত্ব বজায় রেখে চলতে পারি এবং সুস্থ জীবন যাপন করতে পারি।

সপ্তম শ্রেণীর বিজ্ঞান পঞ্চম সপ্তাহের অ্যাসাইনমেন্ট

তাপমাত্রা বাড়লে বায়ুমন্ডলের চাপ কমে যায় কেন?

তাপ সঞ্চালন কাকে বলে?

দন্ডের তাপমাত্রা ফারেনহাইট স্কেলে নির্ণয় করো।

উদ্দীপকের আলোকে বস্তুতে কোন পদ্ধতিতে তাপ সঞ্চালিত হয়েছে? বিশ্লেষণ করো।

গরম হ্যারিকেনের চিমনিতে ঠান্ডা পানি পড়লে চিমনি ফেটে যায় কেন?

সপ্তম শ্রেণীর বিজ্ঞান চতুর্থ সপ্তাহের অ্যাসাইনমেন্ট

প্রশ্ন ১: লিথিয়াম, পানি, খাবার লবন, চক, কার্বন, চুন, নাইট্রোজেন, পটাশিয়াম, অক্সিজেন, আয়ােডাইড, লােহা, ক্লোরিন ইত্যাদি কিছু পদার্থ।

ক) মৌলিক পদার্থ কাকে বলে?

খ) অণু ও পরমাণুর মধ্যে পার্থক্য লিখ।
গ) উদ্দীপকে উল্লেখিত পদার্থগুলােকে প্রতীক ও সংকেতের সাহায্যে প্রকাশ করে মৌলিক পদার্থ ও যৌগিক পদার্থ আলাদা কর।


ঘ) উল্লেখিত পদার্থগুলাের মধ্যে কাকে সার্বজনীন দ্রাবক বলা হয়? কারণ বিশ্লেষণ কর।

সংক্ষিপ্ত প্রশ্ন – ১ :

চিনিকে কেন যৌগিক পদার্থ বলা হয়?

ক) মৌলিক পদার্থ কাকে বলে?

মৌলিক পদার্থ

যেসব পদার্থ একটিমাত্র উপাদান দিয়ে তৈরি তাদেরকে মৌলিক পদার্থ বলে। যেমনঃ তামা, লোহ্‌ হাইড্রোজেন ,অক্সিজেন ইত্যাদি। আপনি এই সকল পদার্থ কে ভাংলে আর নতুন কোন পদারথ পাওয়া যাবেনা।

অণু ও পরমাণুর মধ্যে পার্থক্য লিখ।

অণু

০১। অনু মুক্ত-স্বাধীন অবস্থায় থাকতে পারে।

০২। দুই বা ততোধিক পরমাণু অনু গঠন করা হয়।
পরমাণু

০১। পরমাণু পরমানু মুক্ত স্বাধীন অবস্থায় থাকতে পারে না।

০২। প্রোটন নিউট্রন ইলেক্ট্রন নামক মৌলিক কণিকা পরমাণু গঠন করে।

 

Back to top button
Close