৭ম শ্রেণী এসাইনমেন্টএসাইনমেন্ট

সপ্তম শ্রেণী আইসিটি অ্যাসাইনমেন্ট সমাধান ২০২১- তথ্য ও যোগাযোগ প্রযুক্তি এসাইনমেন্ট

দীর্ঘসময় করোনা ভাইরাসের কারণে ঘরে থাকার জন্য শিক্ষার্থীদের মধ্যে এক ধরনের একঘেয়েমি চলে এসেছে। যা তাদের শিক্ষার ক্ষেত্রে এক চরম বাধা। এই সময়ে বিভিন্ন শিক্ষা প্রতিষ্ঠানগুলোতে পরীক্ষার বদলে অ্যাসাইনমেন্ট সংগ্রহের ব্যাপারে তাগিদ দিচ্ছে।

প্রত্যেক সপ্তাহে সপ্তাহে বিভিন্ন শিক্ষাপ্রতিষ্ঠান বিষয়ভিত্তিক অ্যাসাইনমেন্ট প্রদান করেছেন এবং সেগুলো গ্রহণ করছেন। এতে আমাদের ওয়েবসাইট কাজ করে যাচ্ছে বিষয় ভিত্তিক বিভিন্ন সাবজেক্ট গুলো পেতে আমাদের ওয়েবসাইট ভিজিট করুন। বিভিন্ন সাবজেক্ট এর এসাইনমেন্ট আমাদের ওয়েবসাইটে সব সময় পাবেন। নিচে সপ্তম শ্রেণির তথ্য ও যোগাযোগ প্রযুক্তির অ্যাসাইনমেন্ট উল্লেখ করা হলো।

ব্যক্তিগত জীবনে তথ্য ও যোগাযোগ প্রযুক্তির প্রয়োজনীয়তা অপরিসীম। ঘুম থেকে উঠে রাতে বেলা ঘুমাতে যাওয়ার আগ পর্যন্ত আমাদের জীবনে তথ্য ও যোগাযোগ প্রযুক্তির ছোঁয়া লেগেছে। তথ্য ও যোগাযোগ প্রযুক্তি বাইরে বর্তমান যুগে আমরা যেন এক অন্য গ্রহের বাসিন্দা। ব্যক্তিগত জীবনে তথ্য ও যোগাযোগ প্রযুক্তির ব্যাপক বিস্তার লাভ করেছে।

সকালে ঘুম থেকে উঠে খবরা খবর জানা থেকে অফিসে গিয়ে ল্যাপটপে কাজ করা এবং রাতের বেলা বাড়ি ফিরে এসে টেলিভিশনের সামনে বসে খবর শোনা যা তথ্য ও যোগাযোগ প্রযুক্তির নামান্তর। শুধু ব্যক্তিগত জীবনে নয় আমাদের কর্ম ক্ষেত্রে তথ্য ও যোগাযোগ প্রযুক্তির প্রভাব পড়েছে। আমরা এখন আর হাতে কলমে কাজ না করে এসব কাজগুলো ল্যাপটপ বা কম্পিউটার করে থাকি।

অনেক বড় বড় তথ্য যেগুলো আমাদের জায়গাবহুল মনে করি সেগুলো আমরা কম্পিউটারে মধ্যে সংরক্ষণ করতে পারি। যা অনেকদিন পর্যন্ত সংরক্ষণ করা যায়। সমাজ জীবনে কম্পিউটার তথ্য ও যোগাযোগ প্রযুক্তির গুরুত্ব অপরিসীম। কর্ম ক্ষেত্রে তথ্য ও যোগাযোগ প্রযুক্তির গুরুত্ব সবচাইতে বেশি। কম্পিউটারের মধ্যে বেশ কিছু সংশ্লিষ্ট বিষয় থাকে। যেমন মাউস ক্লিক করলেই সেই লেখার উপরে তখন সেই ওয়েবসাইটে নিয়ে যায়।

মাইক্রোফোন যখন আমরা বাইরে থেকে কোন শব্দ করি তখন কম্পিউটারের মাইক্রোফোন শব্দ গ্রহণ করে এবং সে অনুযায়ী কম্পিউটারকে নির্দেশ দেয়। কিবোর্ডে যখন আমরা কোনো কিছু লিখি বা টাইপ করি তখন সেটা কম্পিউটারে লিখা হয়। আমরা বুঝতে পারি কত বিটে কত টেরা বাইট। কম্পিউটারের রয়েছে হার্ডডিক্স যেখানে বিভিন্ন তথ্য সংরক্ষণ করা থাকে। এছাড়া রয়েছে মাদারবোর্ড এর মধ্যে রয়েছে মাইক্রোপ্রসেসর, চিপসেট, রোম, জেনারেটর, এক্সপানশন ফ্ল্যাট,পাওয়ার সংযোগ প্লট।

কম্পিউটারের প্রধান অংশ রয়েছে যেটাকে বলা হয় প্রসেসরবা সি পি ইউ। সেন্ট্রাল প্রসেসিং ইউনিট। এছাড়াও রয়েছে কম্পিউটারের ইনপুট ও আউটপুট ডিভাইস যেখানে আমরা বিভিন্ন তথ্য দিয়ে থাকি প্রবেশ করি আর সেটা আউটপুটের মাধ্যমে আমরা তার ফল পেয়ে থাকি।

কম্পিউটারে কোন একটা লেখা লিখলাম সেটা তখন সেটা ইনপুট ডিভাইস হিসেবে দেখা দিল কিন্তু যখন সেটা প্রিন্টারে বেরিয়ে আসলো তখন সেটা আউটপুট ডিভাইস এর ফলাফল হিসেবে প্রকাশ ঘটলো। তাই জীবনকে তথ্য ও যোগাযোগ প্রযুক্তিতে সমৃদ্ধ করার জন্য তথ্য ও যোগাযোগ প্রযুক্তির সঠিক জ্ঞান আমাদেরকে ধারণ করতে হবে এবং সে অনুযায়ী প্রয়োগ করতে হবে।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

Back to top button